Home Blog টেকসই দারিদ্র্য নিরসনে ঋণ কার্যক্রমের পাশাপাশি সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহনের বিকল্প নাই

টেকসই দারিদ্র্য নিরসনে ঋণ কার্যক্রমের পাশাপাশি সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহনের বিকল্প নাই

44
টেকসই উন্নয়ণ
টেকসই দারিদ্র্য নিরসনে ঋণ কার্যক্রমের পাশাপাশি সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহনের বিকল্প নাই

”টেকসই দারিদ্র্য নিরসনে ঋণ কার্যক্রমের পাশাপাশি সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহনের বিকল্প নাই” – মো: আজিম রানা

সমন্বিত উন্নয়ন কার্যক্রমের উদ্যোগ ব্যতীত দীর্ঘমেয়াদে টেকসই দারিদ্র্য বিমোচন সম্ভব নয়। দারিদ্র্য লাঘবে ক্ষুদ্রঋণ ও ক্ষুদ্র অর্থায়নের অবদানকে অস্বীকার করার কোনও উপায় নাই। তবে শুধুমাত্র ক্ষুদ্রঋণ প্রদানের মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচন সম্ভব নয়। তাই প্রয়োজন সমন্বিত উন্নয়ন কার্যক্রম।

সরাসরি মাঠে কাজ করার অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি যে, একটি সমন্বিত প্রক্রিয়া ছাড়া টেকসই দারিদ্র্য বিমোচন সম্ভব না। এর মূল কারণ হলো দারিদ্র্য বহুমুখী। সু-শিক্ষার অভাব, স্বাস্থ্য সমস্যা, পয়ঃনিষ্কাশন সমস্যা, জলবায়ু পরিবর্তন ও বেকার সমস্যা এখনও আমাদের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবন্ধকতা। শুধুমাত্র ঋণ কার্যক্রমের মাধ্যমে এত সমস্যার সমাধান সম্ভব না। ঋণ কার্যক্রমের মাধ্যমে দরিদ্র্য জনগোষ্ঠীকে অর্থকারী কর্মকান্ডে উৎসাহ প্রদান করা গেলেও অনেকেই ব্যর্থ হচ্ছেন। এই ব্যর্থতার অন্যতম কারণ হলো সু-শিক্ষার অভাব ও পরিবেশ অনুকুলে না থাকা। সাম্প্রতিক করোনা কালে আরও কিছু লোক নতুন করে দারিদ্র্য সীমার নিচে চলে গিয়েছেন। অনেকেই তাদের পূর্বের পেশা পরিবর্তন করে নি¤œগামী পেশায় যুক্ত হয়েছেন। তাদের পুনরায় দারিদ্র্য সীমা থেকে বের করতে প্রয়োজন হবে একটি সমন্বিত প্রক্রিয়া। যা বর্তমান প্রেক্ষাপটে চ্যালেঞ্জিংও বটে।

আমাদের সমাজে এখনও বেশি অবহেলা ও দারিদ্র্যতার শিকার মেয়েরা। এটা সবচেয়ে বেশি প্রতিফলিত হয় গ্রাম পর্যায়ে। গ্রামে এখনও একটি মেয়ের আঠারো বছর হওয়ার পূর্বেই বিয়ে দেওয়া হয়। মা হওয়ার মত আনুষঙ্গিক বিষয়গুলো কখনই বিবেচনা করা হয় না। এটা রোধ করা খুবই জরুরি।

ঋণ কার্যক্রমে যারা উদ্যোক্তা হচ্ছেন তারা কতটুকু কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে পারছেন এটা দারিদ্র্য বিমোচনের ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। মাঠের অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি, যারা প্রকৃত পক্ষে উদ্যোক্তা হচ্ছেন তারা কাঙ্খিত মাত্রায় কর্মসংস্থান তৈরী করতে পারছেন না। এখানে যে সকল কর্মে অধিক কর্মসংস্থান তৈরী হওয়ার সম্ভাবনা আছে সেই সকল প্রকল্পে বিনিয়োগ অধিক হারে বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। কিন্তু এক্ষেত্রে তহবিল ঘাটতি ঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান গুলোর জন্য একটি বড় সমস্যা। বর্তমানে প্রচলিত ব্যাংক গুলো আকারে বড় (এমএফআই) প্রতিষ্ঠান গুলোকে অর্থায়ন করতে বেশি আগ্রহ দেখাচ্ছে। আবার অনেক বড় (এমএফআই) প্রতিষ্ঠান প্রান্তিক উদ্যোক্তাদের থেকে বানিজ্যিক এলাকায় বিনিয়োগে বেশি আগ্রহ দেখাচ্ছে। সমন্বিত উন্নয়ন বান্তবায়ন করতে গেলে প্রান্তিক উদ্যোক্তাদের অধিক প্রাধান্য দিতে হবে এবং ক্ষুদ্র ঋণ কর্মসূচির মধ্যে আরও বৈচিত্রময় বিনিয়োগ করে দারিদ্র্য বিমোচনের গতি ত্বরান্বিত করতে হবে। এছাড়া আরও একটি অতি জরুরি বিষয় হলো, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে যে সকল সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে তা রোধ করতে দ্রæত কার্যকরি সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহন করা প্রয়োজন।

কিভাবে হতে পারে সমন্বিত উন্নয়ন কার্যক্রম ?
প্রচলিত ঋণ কার্যক্রমের পাশাপাশি সমন্বিত উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করার জন্য তুলনা মূলক ভাবে পিছিয়ে পড়া এলাকা নির্বাচন করতে হবে। এরপর সংশ্লিষ্ট কর্ম এলাকায় সমস্যা গুলোকে চিহ্নিত করে জনগনকে সাথে নিয়ে প্রতিটি সমস্যা সমাধানের টার্গেট করতে হবে এবং নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে টার্গেট অর্জন বাস্তবায়ন করতে হবে। এখানে জনগনের সক্রিয় অংশগ্রহন খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। পিছিয়ে পড়া এলাকায় যেমন কিছু সমস্যা থাকবে আবার কিছু সম্পদও থাকবে। প্রথম প্রচেষ্টা থাকবে নিজেদের সম্পদ দিয়ে নিজেদের সমস্যা নিরসন। যে সকল সমস্যা গুলো নিজেদের সম্পদ দিয়ে সমাধান সম্ভব নয় সেগুলোকে চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করতে হবে।

সমন্বিত উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় যে সকল কার্যক্রমকে প্রাধান্য দেওয়া প্রয়োজন – অর্থের যোগান ও পুঁজি গঠন (ঋণ কার্যক্রম), স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রম, নিরাপদ পানি ও স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা নিশ্চিতকরণ, শিক্ষা কার্যক্রম, কর্মমুখী প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে কর্মসংস্থান তৈরী, ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা তৈরী (ঋণ কার্যক্রম) এবং জলবায়ু পরিবর্তনের সমস্যা সমাধান ও মহামারী মোকাবেলায় প্রস্তুতি গ্রহন ইত্যাদি। সমস্বিত উন্নয়নের সবগুলো কার্যক্রম প্রয়োজন অনুযায়ী একই সাথে একই এলাকায় বাস্তবায়ন করতে হবে। তাহলে একটা সময় কমিউনিটিই তাদের নিজেদের সমস্যা নিজেরাই সমাধান করতে শিখে যাবে যা টেকসই উন্নয়নের নিশ্চয়তা প্রদান করবে।

পরিশেষে বলতে চাই, দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচিকে সামাজিক আন্দোলনের রুপ দিতে হবে। সমন্বিত উন্নয়ন কার্যক্রমের মাধ্যমে সামাজিক, অর্থনৈতিক ও মানবিক বিষয়কে প্রধান্য দিয়ে টেকসই দারিদ্র্য বিমোচনের পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করতে হবে।

আমাদের ফেইসবুক পেইজ

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

error: Content is protected !!